n সত্ত্বঃ, রজঃ ও তমোঃ - এই তিন গুণের তারতম্যে মানুষের স্বভাবের পার্থক্য - 25 September 2011 - হিন্দু ধর্ম ব্লগ - A Total Knowledge Of Hinduism, সনাতন ধর্ম Hinduism Site
Thursday
19-09-2019
2:26 PM
Login form
Search
Calendar
Entries archive
Tag Board
300
Site friends
  • Create a free website
  • Online Desktop
  • Free Online Games
  • Video Tutorials
  • All HTML Tags
  • Browser Kits
  • Statistics

    Total online: 1
    Guests: 1
    Users: 0

    Hinduism Site

    হিন্দু ধর্ম ব্লগ

    Main » 2011 » September » 25 » সত্ত্বঃ, রজঃ ও তমোঃ - এই তিন গুণের তারতম্যে মানুষের স্বভাবের পার্থক্য Added by: শকুন্তলা-দেবী
    9:40 PM
    সত্ত্বঃ, রজঃ ও তমোঃ - এই তিন গুণের তারতম্যে মানুষের স্বভাবের পার্থক্য
    সত্ত্বঃ, রজঃ ও তমোঃ - এই তিন গুণের তারতম্যে মানুষের স্বভাবের পার্থক্য

    সত্ত্বঃ গুণের অধিকারী যারা, তাঁরা সাধারণত শান্ত ও ধীরস্থিরভাবে চলাফেরা করেন। তাদের চলনে, বচনে ও কর্মে সর্বদা সততা ও সজীবতা ফেঁটে ওঠে। লোভ, মোহ, কাম, ক্রোধ, মদ ও মাৎসর্য - এদেরকে একত্রে বলা হয় ষড়রিপু। এই ষড়রিপু সত্ত্বঃ গুণে গুণান্বিত মানুষদের আক্রান্ত করতে পারে না। প্রেম-প্রীতি, স্নেহ-ভালবাসা, শ্রদ্ধায় আর ভক্তিতে তাদের হৃদয় মন সদা জাগ্রত। এগুণের মানুষরা পূজার বাহ্যিক আচার অনুষ্ঠানে বিশ্বাসী নয়। এরা সাত্ত্বিক পূজায় বিশ্বাস করে বলে এরা দেব গুণে গুণান্বিত। আত্মার মুক্তির জন্য তাঁরা কামনা বাসনা ত্যাগ করে দেবী আরাধনায় বিভোর হয়ে উঠেন।

    রজঃ গুণের অধিকারীরা হন কর্মঠ। তাদের চিন্তা ও চেতনায় সর্বময় উচ্চাকাঙ্খা ও আভিজাত্যের অহংকার পরিলক্ষিত হয়। তারা আসুরিক চরিত্র ধারণ করে। ষড়রিপু দ্বারা আক্রান্ত হয়ে এরা একে অপরের মধ্যে বিবেধ তৈরী করে। এরা বিবেক বুদ্ধি শূণ্যতায় আচ্ছন্ন হয়ে তাদের প্রতিদন্দ্বীকে পরাভূত করে কেবল নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার আকাঙ্খা ব্যক্ত করে। এ গুণের মানুষরা পূজায় জাকজামক্যের বিষয়ে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। তারা রাজস্বিক পূজায় বিশ্বাস করেন। পূজায় তাদের মধ্যে প্রতিযোগীতামূলক ভাব জেগে ওঠে। নিজস্ব ক্ষমতা ও শক্তির বলে এরা নিজেদের জাহির করতে চায়। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার ইচ্ছা তাদের সবসময় ধাবিত করে। তাদের অশুভ চিন্তা চেতনায় সমাজে হিংসা, বিদ্বেষ, কলহ ও বিভিন্ন অপশক্তির সৃষ্টি করে।

    তমোঃ গুণের মানুষেরা কু-বুদ্ধি ও ক-ুপ্রবৃত্তির হয়ে থাকে। তাদের মনে সব সময় হীনমন্যতা ও নীচুতা কাজ করে। জড়তা, আলস্য, কাপুরুষতা, কু-রুচি, কু-প্রবৃত্তি ইত্যাদি এদের লক্ষণ। এরা যেভাবে পূজা করে, তাকে বলা হয় তামসিক পূজা। তামাশার ছলে এই শ্রেণীর মানুষরা পূজায় নানা রং-ঢং এর আয়োজন করে। তাদের চাল-চলন, কথাবার্তা ও আচার অনুষ্ঠানে সর্বত্রই অপরিচ্ছন্নতা, অ-ধর্ম ও কু-কর্ম পরিলক্ষিত হয়।

    সত্ত্বঃ, রজঃ ও তমোঃ এই তিন গুণের তারতম্যে ধরাতলে দেবীর নানারুপের প্রকাশ পেয়েছে। প্রকৃতিগতভাবে দেবী ধরাতলের সমগ্র জীবসমূহের মধ্যে চলাচল করছেন। তিনি ব্রহ্মার লয়কারিণী কালরাত্রি, জগতের লয়কারিণী মহারাত্রি এবং মানুষের লয়কারিণী ভয়ঙ্করী মোহরাত্রী। দেবী বিশ্বেশ্বরী, তাই সমগ্র বিশ্বকে রক্ষা করছেন। তিনি জগৎরূপা, তাই সমগ্র জগৎকে ধারণ করছেন। দেবী ব্রহ্মা, ইন্দ্র প্রভৃতি দেবগণের আরাধ্য। তাঁতে যে যেভাবে, যে গুণেই ভক্তিভাব প্রদর্শন করে তারা সেভাবেই তাঁর আশ্রয় হয়ে থাকেন।
    Views: 399 | Added by: শকুন্তলা-দেবী | Tags: Gun | Rating: 5.0/1
    Total comments: 3
    0   Spam
    1 Koilas   (26-09-2011 9:47 AM)
    সত্ত্বঃ, রজঃ ও তমোঃ এর মধ্যে কোনটায় আমি ভাবছি। smile smile smile

    অসংখ্য ধন্যবাদ দিদি অনেক ভাল লাগল।

    0   Spam
    2 rajendra   (26-09-2011 3:41 PM)
    আপনি ভেবে দেখেন

    আমি নিজেকে তম গুনাসিক্ত ব্লেই মনে করি

    0   Spam
    3 Joyanta   (26-09-2011 11:36 PM)
    নিজের মধ্যে তিন গুনেরই মিশ্রণ খুজে পাই। তবে মোটাদাগে সাত্ত্বিক বাদে অন্য কোন ভাগে পড়ি ভাবছি। wacko
    জীবনে অন্তত একজন সাত্বিক মানুষ দেখে যেতে চাই।

    Only registered users can add comments.
    [ Registration | Login ]