n সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববর্ণে দশাশৌচ পালন বিধি ও শাস্ত্রসম্মত - 22 September 2011 - হিন্দু ধর্ম ব্লগ - A Total Knowledge Of Hinduism, সনাতন ধর্ম Hinduism Site
Thursday
19-09-2019
2:23 PM
Login form
Search
Calendar
Entries archive
Tag Board
300
Site friends
  • Create a free website
  • Online Desktop
  • Free Online Games
  • Video Tutorials
  • All HTML Tags
  • Browser Kits
  • Statistics

    Total online: 1
    Guests: 1
    Users: 0

    Hinduism Site

    হিন্দু ধর্ম ব্লগ

    Main » 2011 » September » 22 » সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববর্ণে দশাশৌচ পালন বিধি ও শাস্ত্রসম্মত Added by: নামহীন
    6:48 PM
    সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববর্ণে দশাশৌচ পালন বিধি ও শাস্ত্রসম্মত
    জন্মসূত্রে ব্রাহ্মণ- ব্রাহ্মণ নয়। মনুস্মৃতিতে বলা আছে- ‘যে ব্রাহ্মণ ব্রহ্মজ্ঞ, তিনিই ব্রাহ্মণ’। সেই ব্রাহ্মণ যে কোন বর্ণ থেকে হতে পারেন। ডঃ মহানামব্রত ব্রহ্মচারী, স্বামী বিবেকানন্দ জন্মসূত্রে ব্রাহ্মণ ছিলেন না কিন্তু আজ সারাবিশ্বে তাদের পূজা হয়। ব্রাহ্মণগণ তাদের পূজা করে থাকেন

    কিছুদিন পূর্বে শহরতলীর রামপুর মহাদেব মন্দির প্রাঙ্গণে সূত্রধর সম্প্রদায়ের এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় অধ্যক্ষ নিখিল রঞ্জন ভট্টাচার্য্যসহ বিভিন্ন শাস্ত্রকার জ্ঞানী, গুণী ও বিশিষ্ট পণ্ডিত ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। সভায় সূত্রধর সম্প্রদায়গণ দশ দিনে অশৌচ পালনের ব্যাপারে সিদ্ধান্তে উপনীত হন। এ সংবাদটি হবিগঞ্জের বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিতও হয়। কিন্তু পরিতাপের বিষয়, ওই সিদ্ধান্ত গুটিকয়েক ব্যক্তি সহ্য করতে পারেননি। তারা গত ২ মার্চ হবিগঞ্জের একটি স্থানীয় পত্রিকায় প্রতিবাদ জানান। কথায় বলে- ‘নিজের নাক কেটে অন্যের যাত্রা ভঙ্গ’। পাঠকগণ শাস্ত্র সম্পর্কে আমি অত্যন্ত অনভিজ্ঞ এবং লেখালেখির তেমন অভ্যাস আমার নেই। যারা বক্তব্যটি দিয়েছেন তারা ব্রাহ্মণ কে এবং শুদ্র কে তার কতটুকু জানেন আমার জানা নেই। জন্মসূত্রে ব্রাহ্মণ-ব্রাহ্মণ নয়। মনুস্মৃতিতে বলা আছে- ‘যে ব্রাহ্মণ ব্রহ্মাজ্ঞ তিনিই ব্রাহ্মণ’। সেই ব্রাহ্মণ যে কোন বর্ণ থেকে হতে পারেন। ডঃ মহানামব্রত ব্রহ্মচারী, স্বামী বিবেকানন্দ জন্মসূত্রে ব্রাহ্মণ ছিলেন না কিন্তু আজ সারাবিশ্বে তাদের পূজা হয়। ব্রাহ্মণগণ তাদের পূজা করে থাকেন। শূদ্রদের বৈদিক মন্ত্র উচ্চারণ করার কিংবা পড়ার অধিকারী নাই, যারা এই জাতীয় কথাবার্তা বলে পত্রিকায় প্রকাশ করেন তাদের কিভাবে মূল্যায়ন করবেন তার বিচার পাঠকগণের উপর ছেড়েদিলাম। ওই গোষ্ঠীটি গত ১৯ মার্চ শ্রীশ্রী শনিদেব মন্দির প্রাঙ্গনে এক সভা করেন। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শান্তিপ্রিয় সূত্রধর সম্প্রদায় এবং কুল পুরোহিত আচার্য্য সম্প্রদায়কে দশাশৌচ পালন না করার জন্য অনুরোধ কোথাও কোথাও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আসছেন। ফলে শান্তিপ্রিয় সূত্রধর সম্প্রদায়ের কেউ কেউ পুরোহিত পাবেন না, এই ভয়ে দশাশৌচ পালন করবেন কিভাবে এ ব্যাপারে দ্বিধাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। রামপুর মন্দির মাঠে এ কথাও বলা হয়েছিল ‘কেউ যদি তার মনের শান্তির জন্য ৩০ দিন অশৌচ পালন করে তারও অনুষ্ঠান সুন্দর ও সার্থক হোক এই বাসনা আমাদের থাকবে। সর্ববর্ণে দশাশৌচ পালন করা শাস্ত্র সম্মত এবং বিধি সম্মত। সম্মানিত পাঠকগণ এবার আমি সর্ববর্ণে দশাশৌধ পালন শাস্ত্রসম্মত এবং বিধি সম্মত কিনা তা শাস্ত্রের কিছু ব্যাখ্যা দিয়ে প্রমাণ করার চেষ্টা করছি। মনুসংহিতায় ঋষি মনু বলেন, ‘সপিন্ডের মৃত্যু হলে দশদিন অশৌচ হবে এবং গুণের তারতম্য অনুসারে চার দিন অথবা তিন দিন বা এক অহোরাত্র মাত্র অশৌচ বিহিত’ (৫/৫৯)। ‘মৃত্যুশৌচ অস্পৃশ্যাত্ব রূপ অশৌচ সকলেই সমান। কিন্ত জনানশৌচ কেবল মাতা পিতারই অস্পৃশ্যত্ব হয়। এ অশৌচ সাতার দশরাত্রি কিন্তু পিতা স্নান করলেই স্পর্শনীয় হন’ (৫/৬২)। ‘বিদেশস্থ সপিণ্ডের মৃত্যু সংবাদ যদি দশাহের মধ্যে শুনতে পাওয়া যায় তাহলে দশাহের যে কয়দিন অবশিষ্ট থাকে সে কয়দিন মাত্র অশৌচ থাকে’ (৫/৭৫)। ‘দশদিন অতিক্রান্ত হইবার পর যদি ঐ মৃত্যু সংবাদ শোনা যায় তবে শোনার পর তিন রাত্র পর্যন্ত অশৌচ হয়। বৎসর অতীত হয়ে গেলে যদি মৃত্যু সংবাদ শুনা যায় তবে কেবল স্নান করেই শুদ্ধ হওয়া যায়’ (৫/৭৬)।
    মনুসংহিতায় শুধুমাত্র একটি স্লোকেই চারিবর্ণের উল্লেখ পাওয়া যায়। তা হলো- ‘সপিণ্ডের মৃত্যু অথবা জন্মে বেদপাঠ রহিত ব্রাহ্মন দশদিনে, ক্ষত্রিয় দ্বাদশ দিনে, বৈশ্য পঞ্চদশ দিনে এবং শুদ্র এক মাসে শুদ্ধ হন’ (৫/৮৩)। কিন্তু পরের স্লোকেই বলেছেন ‘অশৌচের দিন সংখ্যা বৃদ্ধি করা মোটেই উচিৎ নয়’। (কুলুক ভট্টের সংযোজিত টিকা)
    এবার আসা যাক গরুড় পুরাণে। শ্রীকৃষ্ণ বলেন, ‘সপিণ্ডদিগের মরণাশৌচ দশাহ। যারা নিপুরভাবে শুদ্ধি কামনা করেন, তারা পুত্রাদির্জনানেও দশাহ অশৌচই পালন করা’ (৬/১০)। ২) ‘সর্ববর্ণের মরণে জননে দশদিন অশৌচ পালন কলিযুগের বিধি’। এই মন্ত্রগুলোতে সর্ববর্ণের মরণে ও জননে দশদিন অশৌচ পালন করে শুদ্ধ হবার কথা বলেছেন।
    এবার শ্রীকৃষ্ণ বাক্যরবাহ পুরাণে কি বলেন শোনা যাক। বরাহপুরাণের ১৮৮/৬ ও ৭নং শ্লোকে বলা হয়েছে, ‘একাদশ দিনে যথাবিধি একোদ্দিষ্ট বিধিক পিন্ডদান করিবে। অনন্তর স্নানার্থে শুচি হয়ে সেই প্রেতদেহ বিপ্রদেহে যোজনা করিবে। হে বসুধেংমনুষ্যগণের মধ্যে বিপ্র, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য বা শুদ্র এই চারি বর্ণের একোদ্দিষ্ট একইরূপ।’
    সর্ববর্ণের দশাশৌচের পক্ষে আরও একটি জোরালো যুক্তি আছে। যেমন শ্রাদ্ধের মন্ত্রে আছে, ‘হে প্রেত আত্মা তুমি আকাশে অবলম্বনহীন অবস্থায় ও বায়ূতে নিরাশ্রয় অবস্থায় আছো। এ জল ও ক্ষীর দিলাম স্নান আহার করে সুখী হও।’ তাই সপিন্ডকরণের পূর্ব পর্যন্ত প্রেত আত্মাকে প্রতিদিন এক একটি করে দশটি পূরক পিণ্ডদান করতে হয়। নতুবা প্রেতাত্মা অভূক্ত থেকে কষ্ট পান। তাই দশদিনে দশটি পূরক পিন্ড দিয়ে একাদশ দিনে শ্রাদ্ধ করাই সর্ববর্ণের বিধি সম্মত। ফলে একত্রিশ দিনে শ্রাদ্ধ করলে বিশদিন প্রেতাত্মা ক্ষুধায় নিশ্চয়ই কষ্ট পান। মাতা পিতার প্রেতাত্মাকে কষ্ট দেয়া সন্তানের উচিত নয়। উপরোক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে এবং শাস্ত্রীয় যে শ্লোকগুলি তুলে ধরেছি, সেগুলি শাস্ত্রসম্মত। ওই শ্লোকগুলি শ্র“তি, স্মৃতি পুরাণ বা কোনও শাস্ত্রের দ্বারা বাতিল করা হয়নি। আইনে আছে, আইন কোন বিশেষ প্রয়োজনে কিংবা দেশের স্বার্থে সংশোধন করা হয়ে থাকে বা সংশোধন করা যায়। কিন্তু শাস্ত্রের ঐ শ্লোকগুলি যদি পরিবর্তন বা বাতিল না হয়ে থাকে তাহলে সর্ববর্ণে দর্শাশৌচ পালনে বাধা কোথায়? আপনারা তো শাস্ত্রের একটি শ্লোকও দেখতে পারবেন না যে সর্ববর্ণে দর্শাশৌচ নিষেধ। পাঠকগণ অনেক লিখা হয়ে গেছে। সর্বোপরি উল্লেখযোগ্য যে, ১৯৭৫ সনে নারায়নগঞ্জে অনুষ্ঠিত সনাতন ধর্ম মহাসম্মেলনে মহান পুরুষ ডঃ মহানমব্রত ব্রহ্মচারিজীর পৌরহিত্যে ও সভাপতিত্বে শাস্ত্রবিশারদ পন্ডিত এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিগণের উপস্থিতিতে সর্ববর্ণে দশাশৌচ পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। অতঃপর এই শ্লোগানের ভিত্তিতে ১৯৭৮ইং সনে শ্রদ্ধেয় শিব শংকর চক্রবর্তী সমাজ দর্পণের সম্পাদক (সংস্কৃতিসহ তিনটি বিষয়ে এম.এ) আরও একধাপ এগিয়ে বলেছেন, সর্ববর্ণে দশাশৌচ শাস্ত্রসম্মত। কিন্তু পূর্বে একটি বর্ণের উপর জোর করে ৩০ দিনের শ্রাদ্ধ চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশে ইতিপূর্বেও তৎপর হতে সর্ববর্ণে দশাশৌচ পালন হয়ে আসছে। আমাদের সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও সিলেটে সূত্রধর সম্প্রদায়ের দশাশৌচ পালন করে আসছেন এবং হবিগঞ্জে ৩০ দিন এবং দশদিন অশৌচ পালন করে আসছেন। এমতাবস্থায় হবিগঞ্জে দশাশৌচ পালনের ব্যাপারে গত ১৯ ফেব্র“য়ারি রামপুর মন্দির প্রাঙ্গণে এক সভার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পরিশেষে পুরোহিত মহাশয়গণের প্রতি অনুরোধ, ৩০ দিনের শ্রাদ্ধে যেমন যজমানের বাড়িতে গেছেন, ১০ দিনের শ্রাদ্ধেও যজমানের বাড়িতে যান। আর যজমানদের প্রতি আমার একান্ত অনুরোধ, হিংসা নয় বিদ্বেষ নয় সর্ববর্ণে দশাশৌচ সম্পূর্ণ শাস্ত্রীয় বিধি সম্মত। আমার লেখায় যদি কোন ভুল ভ্রান্তি পান নিজগুণে ক্ষমা করবেন। কেউ যদি দুঃখ পান ক্ষমাপ্রার্থী। জয় হোক সনাতন ধর্মের, জয় কোন সূত্রধর সম্প্রদায়ের। বিশ্বের কল্যাণ হোক।
    এডভোকেট সুধাংশু সূত্রধর
    আহবায়ক, সূত্রধর সমাজ কল্যাণ পরিষদ
    হবিগঞ্জ জেলা শাখা
    সদস্য সচিব, দশাশৌচ পালন কমিটি, হবিগঞ্জ
    Views: 745 | Added by: নামহীন | Tags: asouch | Rating: 0.0/0
    Total comments: 0
    Only registered users can add comments.
    [ Registration | Login ]